রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯

কলারোয়ায় কখনো স্কুলে না যাওয়া শিশুদের নিয়ে ৭০টি শিক্ষা কার্যক্রম

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ঝরে পড়া এবং কখনো বিদ্যালয়ে না যাওয়া শিশুদের শিক্ষার আলো দেখাতে ৭০টি স্কুল চালু করা হয়েছে। আউট অব স্কুল চিড্রেন এডুকেশন প্রোগ্রাম (পিইডিপি-৪, সাব কম্পোনেন্ট-২.৫) এর শিখন কর্মসূচি চালু করেছে। কলারোয়া উপজেলার উন্নয়ন পরিষদ (উপ) সংস্থা কর্তৃক এ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এখন থেকে এ উপজেলায় আর কোনো লোক থাকবে না নিরক্ষর। সবাই শিখবে লেখাপড়া, পকেটে থাকবে কলম। নিক্ষরমুক্ত হবে পুরো উপজেলায়া। এই কাজের সহযোগিতা করায় কলারোয়ার উন্নয়ন পরিষদ (উপ) সংস্থা পরিচালক আব্দুস সালমকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেছে স্কুলে আসা সকল শিক্ষার্থীর অভিভাবকগণ। আজ বুধবার সকালে সাংবাদিকদের মাধ্যমে অভিভাবকরা তাদের শুভেচ্ছা জ্ঞাপনের কথা তুলে ধরেন। তারা বলেন,এটি একটি ভাল উদ্যোগ। প্রতিটি গ্রামে এই স্কুল চালু হওয়ায় তাদের ছেলে ও মেয়েরা বাড়িতে বসে সহজেই লেখাপড়াতে পারছে।

একজন স্কুলশিক্ষার্থীর পিতা রফিকুল ইসলাম বলেন, সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য এ মহতী উদ্যোগ গ্রহণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বাস্তবায়নকারী সংস্থা কলারোয়ার উন্নয়ন পরিষদ (উপ) সংস্থা পরিচালক আব্দুস সালমকে ধন্যবাদ জানাই। এদিকে এই আউট অব স্কুল চিড্রেন এডুকেশন প্রোগ্রাম-এর শিখন কর্মসূচি নিয়মিত ভাবে ভেরিফিকেশন করছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সভাপতিত্বে উপজেলা কৃষি অফিসার, উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার, উপজেলা মৎস্য অফিসার। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সদস্য সচিব হিসেবে কাজ করছেন।

কলারোয়ার উন্নয়ন পরিষদ (উপ) সংস্থা পরিচালক আব্দুস সালম বলেন, উপজেলায় ৭০টি স্কুল এক যোগে চালু করা হয়েছে। এই স্কুলে ৭০ জন শিক্ষক, ৫ জন সুপারভাইজার, একজন উপজেলা ম্যানেজার ও একজন অফিস সহকারী রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, কলারোয়ায় যাতে কোন শিশু শিক্ষা থেকে বাদ না পড়ে, সে জন্য বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে তাদের খুঁজে বের করে স্কুলে ভর্তি করানো হচ্ছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতায় উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোকর্তৃক (বিএনএফই) চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি থেকে এই স্কুল পরিচালনা করার জন্য অনুমতি দিয়েছেন। সে অনুযায়ী উপজেলায় সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে স্কুলগুলো পরিচালিত হচ্ছে।