রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯

জনি ডেপ আবারও অ্যাম্বার হার্ডের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন!

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

সাম্প্রতিক এক সাক্ষাৎকারে হার্ড আবারও দাবি করেন, ডেপ তার গায়ে হাত তুলেছিলেন। জনসম্মুখে এমন বক্তব্যের ফলে আইনি ভিত্তিতে চাইলে আবারও অভিনেত্রীর নামে মামলা করতে পারেন ডেপ।

মানহানি মামলায় পরাজয়ের পর প্রথমবারের মতো দেওয়া টিভি সাক্ষাৎকারে এ বিষয়ে কথা বলেছেন হলিউড অভিনেত্রী অ্যাম্বার হার্ড। তার দাবি, আদালতে তার সাক্ষ্য দেওয়া প্রতিটি কথাই সত্য।

গেল সোমবার প্রকাশিত হওয়া ভিডিও ক্লিপে দেখা যায়, জনি ডেপের সাক্ষ্য নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছিল হার্ডকে যেখানে ডেপ বলেছিলেন তিনি কোনোদিন অভিনেত্রীর গায়ে হাত তুলেননি। জবাবে হার্ড বলেন, 'ডেপ মিথ্যা বলেছেন।' টিভি শোতে গিয়ে হার্ডের এমন দাবির ফলে আবারও তিনি মামলায় ফেঁসে যেতে পারেন বলে নতুন একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

গত ১ জুলাই মানহানি মামলার রায় দেন আদালত, যেখানে অ্যাম্বার হার্ডের পরাজয় হয়। যদিও আদালত দুজনকেই দোষী সাব্যস্ত করেন, তবে ক্ষতিপূরণ হিসেবে জনি ডেপকে ১৫ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার নির্দেশ দেন আদালত। অন্যদিকে, অ্যাম্বার হার্ডকে ২ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ হিসেবে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয় ডেপকে। বিচারকদের এই রায়কে নিজের 'প্রাণ ফিরিয়ে আনা' রায় হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন 'ক্যাপ্টেন জ্যাক স্প্যারো' নিজেই। ভক্তরাও এই রায়কে ডেপের জয় হিসেবেই দেখছেন।

তবে এনবিসিকে দেওয়া সাম্প্রতিক সাক্ষাৎকারে অ্যাম্বার হার্ড জানান, আদালতে নিজের দেওয়া সাক্ষ্য নিয়ে কোনো অনুশোচনা নেই তার। ডেপ কখনো তাকে আঘাত করেননি, অভিনেতার এমন দাবিকে 'মিথ্যা' হিসেবেই অভিহিত করেন 'অ্যাকুয়াম্যান' অভিনেত্রী।

গত মঙ্গলবার নিউইয়র্কভিত্তিক আইনজীবি নিকোল হাফ জানান, হার্ডের এমন মন্তব্য তাকে আবারও আদালতকক্ষে ফিরিয়ে নিয়ে যেতে পারে। নিকোল বলেন, "হ্যাঁ, আইনের ভিত্তিতে এই সাক্ষাৎকারকে একটি নতুন 'পাবলিকেশন' হিসেবে দেখা হতে পারে এবং এর ফলে তৃতীয় আরেকটি মামলা দায়ের হতে পারে।" অর্থাৎ, ডেপ চাইলে আরও একটি মামলা ঠুকে দিতে পারেন সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে!

তবে এই আইনজীবি আরও জানান, জনির উচিত হবে না হার্ডের বিরুদ্ধে নতুন একটি মামলা আনা। কারণ হার্ডের আইনজীবিরা ইতোমধ্যেই জানিয়েছেন যে, হার্ড ক্ষতিপূরণের টাকা দিতে সক্ষম হন।

এদিকে ওই একই সাক্ষাৎকারে অ্যাম্বার হার্ড এও দাবি করেন যে তিনি এখনো জনি ডেপকে ভীষণ ভালোবাসেন এবং অনলাইন দুনিয়ায় ডেপের পক্ষেই বেশি সমর্থন ছিল।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস