বুধবার, ১০ আগস্ট ২০২২, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯

স্বামীকে নিয়ে হানিমুনে পূর্ণিমা

বিয়ের ঠিক দুই মাস পর নতুন স্বামী আশফাকুর রহমান রবিনকে নিয়ে হানিমুনে গিয়েছেন একসময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা দিলারা হানিফ পূর্ণিমা। কিন্তু কোথায় উড়ে গেলেন নব দম্পতি? অভিনেত্রীর পরিবার সূত্রে খবর, হানিমুনের জন্য থাইল্যান্ডের ব্যাংকক শহরটিকে বেছে নিয়েছেন পূর্ণিমা এবং রবিন। গত ২৮ জুলাই সেখানে গেছেন তারা।

স্বামীকে নিয়ে ব্যাংককের পাতায়া এবং ফুকেটে ঘুরছেন পূর্ণিমা। তাদের এই হানিমুন সফর সাত দিনের। দেশে ফিরবেন বুধবার। যদিও এই হানিমুন ট্রিপে ৮ বছর বয়সী মেয়ে আরশিয়া উমাইজাকে সঙ্গে নেননি নায়িকা। তাকে রেখে গেছেন ঢাকায় পূর্ণিমার মায়ের কাছে।

গত ২৭ মে একটি বহুজাতিক কোম্পানির মার্কেটিং বিভাগের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা রবিনকে পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন অভিনেত্রী ও উপস্থাপিকা পূর্ণিমা। সে খবর প্রকাশ করেন সম্প্রতি। এটি নায়িকার তৃতীয় বিয়ে। ফলে, বিয়ের খবর প্রকাশ হতেই শুরু হয় সমালোচনা। নতুন করে আবার বিতর্ক শুরু হয়েছে পূর্ণিমা এবং রবিনের বয়সের পার্থক্য নিয়ে।

বলা হচ্ছে, অভিনেত্রীর থেকে তার নতুন স্বামীর বয়স অনেকটাই কম। এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় চলছে নানা সমালোচনা, কটাক্ষ। যদিও কোনো কিছুকেই পাত্তা দিচ্ছেন না ‘মনের মাঝে তুমি’ সিনেমার নায়িকা পূর্ণিমা। তিনি জীবন কাটাচ্ছেন নিজের মর্জিতে। স্বামীকে নিয়ে ব্যাংককে হানিমুনে যাওয়া বোধহয় তারই প্রমাণ।

এই নায়িকা প্রথম বিয়ে করেন ২০০৫ খ্রিষ্টাব্দের ৬ সেপ্টেম্বর মোস্তাক কিবরিয়া নামে এক ব্যবসায়ীকে। বেশিদিন টেকেনি সেই সংসার। ২০০৭ খ্রিষ্টাব্দের ১৫ মে বিচ্ছেদ ঘটে পূর্ণিমা ও ব্যবসায়ী মোস্তাকের। ওই বছরেরই ৪ নভেম্বর নায়িকা ভালোবেসে বিয়ে করেন চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী আহমেদ জামাল ফাহাদকে।

দ্বিতীয় সংসারে জন্ম হয় পূর্ণিমার একমাত্র কন্যাসন্তান আরশিয়া উমাইজার। ব্যবসায়ী ফাহাদের সঙ্গেও টেকেনি নায়িকার সংসার। ডিভোর্স হয়ে গেছে তাদের। যদিও কবে ঘটেছে এই ঘটনা, তা এখনো প্রকাশ করেননি পূর্ণিমা কিংবা ফাহাদ। তাদের ডিভোর্সের পর থেকে মেয়ে আরশিয়া উমাইজা পূর্ণিমার সঙ্গেই থাকে।