রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯

পদ্মা সেতু নিয়ে জাতীয় সেমিনার কাল

আগামীকাল শনিবার সকাল সাড়ে দশটায় সিরডাপ মিলনায়তনে পদ্মা সেতু নিয়ে একটি জাতীয় সেমিনারের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপকমিটি।

‘শেখ হাসিনার পদ্মা সেতু নির্মাণ : বিশ্ব ব্যবস্থায় বাংলাদেশ তথা উন্নয়নশীল দেশসমূহের এক যুগান্তকারী বিজয়’ শীর্ষক এই সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ।

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। সেমিনার উদ্বোধন করবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি এমপি। সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান।

আলোচক হিসেবে থাকবেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. সামসুল আলম, অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জামান আহমদ, সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার অধ্যাপক ড. গোলাম রহমান, দুর্নীতি দমন কমিশনের সাবেক কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু, পানি সম্পদ ও জলবায়ু বিষয়ক আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ এবং ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. আইনুন নিশাত।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক শবনম আজিম।

আগামী ২৫ জুন পদ্মার ওপর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ ডাবল-ডেক রেল-রোড সেতু উদ্বোধন হবে। লাখ লাখ মানুষ দেশের জন্য স্মরণীয় ও ঐতিহাসিক দিনটি উদযাপনের জন্য অপেক্ষা করছে।

ঝালকাঠি-ঢাকা রুটে নিয়মিত যাতায়াতকারী মো. মনিরুজ্জামান বলেন, দূরদর্শী ও গতিশীল নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সফলতার সঙ্গে সেতুটি সম্পন্ন করে লাখো মানুষের স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিয়েছেন।

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মাসেতু মর্যাদার পাশাপাশি অপমানের প্রতিশোধের প্রতীক। তিনি বলেন, এটি শেখ হাসিনার স্বপ্নের সেতু। পদ্মাসেতু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসের সোনালী ফল, যা আমাদের সামর্থ্য ও সক্ষমতা প্রমাণ করেছে।

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সুন্দরবন একাডেমির পরিচালক অধ্যাপক আনোয়ারুল কাদির বলেন, ‘পদ্মাসেতু চালু হওয়ার পর মংলা সমুদ্রবন্দর আরও কর্মমুখর হবে।’

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের (বিবিএ) কর্মকর্তাদের মতে, ওপরের ডেকে ৪ লেনের রাস্তাসহ প্রায় ২২ মিটার চওড়া কংক্রিটের ডেক স্ল্যাব (দুই পাশে ২.৫ মিটার হার্ড শোল্ডার) এবং নিচের ডেকে একটি সিঙ্গেল ট্র্যাক ডুয়েল গেজ রেল নির্মাণ করা হচ্ছে। ডেকের উচ্চতা ১৩.৬ মিটার। ৭৬০ মিমি ডায়া গ্যাস ট্রান্সমিশন লাইন, ১৫০ মিমি ডায়া ফাইবার অপটিক্যাল ও টেলিফোন ডাক্ট, হাইভোল্টেজ ইলেকট্রিক লাইন, প্রধান সেতুর ২ কিমি ভাটির দিকে নদীতে পাইল ফাউন্ডেশনের ওপর প্ল্যাটফর্মসহ সেতুটি নির্মাণ করা হচ্ছে।